সদ্য সংবাদ :
আন্তর্জাতিক

রোহিঙ্গারা ঐতিহাসিকভাবে ‘বাঙালি’: মিয়ানমার সেনাপ্রধান

Published : Thursday, 12 October, 2017 at 8:15 PM
আন্তর্জাতিক ডেস্ক: মিয়ানমারের সেনাপ্রধান মিন অং হ্লাইয়াং বলেছেন, রোহিঙ্গা মুসলিমরা মিয়ানমারের অধিবাসী নয়। তারা ঐতিহাসিকভাবেই ‘বাঙালি’ বলে মন্তব্য করেছেন তিনি। খবর এএফপির।

বৃহস্পতিবার তার অফিসিয়াল ফেসবুক পেইজ থেকে এক পোস্টে তিনি এ কথা বলেন।  

ওই পোস্টে তিনি দেশ ছেড়ে পালিয়ে যাওয়া রোহিঙ্গা শরণার্থীদের সংখ্যা নিয়ে গণমাধ্যমে অতিরঞ্জিত তথ্য পরিবেশনেরও অভিযোগ তুলেছেন।

মিয়ানমারে যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত স্কট মার্সিয়েলের সঙ্গে বৃহস্পতিবার এক বৈঠকের পর সেনাপ্রধান ফেসবুকে এ বার্তা দেন।

যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে বৈঠকে মিয়ানমারের সেনাপ্রধান বলেন, ‘তারা কোনোভাবেই মিয়ানমারের জনগোষ্ঠী নয়। নথিপত্র প্রমাণ করে, তারা কখনো রোহিঙ্গা নামেও পরিচিত ছিল না। ঔপনিবেশিক আমল থেকেই তারা বাঙালি ছিল। মিয়ানমার তাদের এ দেশে নিয়ে আসেনি। ঔপনিবেশিক আমলেই তারা এসেছিল’

এর আগে গত ১৬ সেপ্টেম্বর সেনাপ্রধান মিন অং হ্লাইয়াং বলেছিলেন, রোহিঙ্গারা স্বীকৃতি দাবি করছে অথচ তারা কখনো মিয়ানমারের নৃগোষ্ঠী ছিল না। এটি ‘বাঙালি’ ইস্যু। আর এই সত্য প্রতিষ্ঠায় একতাবদ্ধ হওয়া প্রয়োজন।

এ বছরের ২৫ আগস্টের পর নতুন করে রাখাইনে রোহিঙ্গাদের ওপর নির্যাতনের ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৫ লাখ ২০ হাজার রোহিঙ্গা বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে বলে জানিয়েছে জাতিসংঘ।

এ ছাড়া বুধবার সংস্থাটির মানবাধিকার দফতরের এশিয়া প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের প্রধান জ্যোতি সাংঘেরা রোহিঙ্গাদের ওপর সহিংসতা বন্ধের জন্য মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সু চির প্রতি আহ্বান জানান।

জ্যোতি সাংঘেরা শঙ্কা প্রকাশ করে বলেছেন, মিয়ানমারে ফিরলে রোহিঙ্গারা বন্দিদশায় পড়তে পারেন। জেনেভায় এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, গ্রামগুলো যদি পুরোপুরি ধ্বংস করা হয় এবং তাদের জীবিকার সম্ভাবনা নষ্ট করা হয়, তা হলে আমাদের ভয় হয় যে, তাদের বন্দি করা বা ক্যাম্পে আটকানো হতে পারে।

এদিকে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর তাড়া খেয়ে গেল মাসে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা ৬৫ রোহিঙ্গার সাক্ষাৎকারের ভিত্তিতে তৈরি করা এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২৫ আগস্ট মিয়ানমারের পুলিশ পোস্টে বিদ্রোহীদের হামলার আগে থেকেই সেখানে ‘তাড়ানোর অভিযান’ শুরু হয়। এ সময় হত্যা, নির্যাতন ও শিশুদের ধর্ষণের মতো ঘটনা ঘটানো হয়।

জাতিসংঘের মানবাধিকারবিষয়ক হাইকমিশনার যাইদ বিন রাআদ আল হুসেইন এক বিবৃতিতে বলেন, মিয়ানমার সেনাবাহিনী যে কাজ করেছে, তা ফেরার সম্ভাবনা না রেখে বিপুলসংখ্যক মানুষকে জোর করে স্থানান্তরের কৌশল বলেই প্রতীয়মান হচ্ছে।

মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনী উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে রোহিঙ্গাদের সম্পদ ধ্বংস, তাদের বসতবাড়ি এবং উত্তর রাখাইনের সব গ্রাম জ্বালিয়ে দিচ্ছে বলে নির্ভরযোগ্য তথ্য পাওয়ার কথা বলা হয়েছে ওই প্রতিবেদনে।

‘এটি শুধু তাদের তাড়ানোর জন্য নয়, পালিয়ে যাওয়া রোহিঙ্গারা যাতে তাদের বাড়িতে ফিরতে না পারে সে জন্য এটি করা হয়,’ বলা হয়েছে এতে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, সশস্ত্র রাখাইন বৌদ্ধদের সঙ্গে নিয়ে নিরাপত্তা বাহিনী রোহিঙ্গাদের ঘরবাড়ি, জমি, সংরক্ষিত খাবার, শস্য ও প্রাণিসম্পদের যে ক্ষতি করেছে, তাতে রাখাইনের উত্তরাঞ্চলে তাদের স্বাভাবিক জীবনে ফেরা ‘প্রায় অসম্ভব’ হয়ে পড়েছে।

এ ছাড়া রোহিঙ্গাদের ফেরা ঠেকাতে মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনী সীমান্ত বরাবর মাইন পুঁতেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।
 
এবিনিউজ টুয়েন্টিফোর বিডিডটকম//এলএল//




আন্তর্জাতিক পাতার আরও খবর


  • সম্পাদক : শাহীন চৌধুরী
    ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : হেলেনা বিলকিস চৌধুরী, নির্বাহী সম্পাদক : সৈয়দ আফজাল বাকের
    ঢাকা অফিস: ২/১ হুমায়ুন রোড (কলেজ গেট) মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭ ফোন: ৮৮-০২-৯১১৯১১৬, ৯১৩৯২৭৪ হটলাইন: ০১৭১১-৫৮৩৬২৩, ০১৭১৮-৬৬৯৫৯৬, চট্টগ্রাম অফিস: নাসিমন ভবন ( দ্বিতীয় তলা) ১২১, নূর আহমেদ রোড, চট্টগ্রাম ফোন: ০৩১-২৫৫৭৫৪২ হটলাইন- ০১৭১১-৩০৭১৭১, E-mail : abnews13@gmail.com, Web : www.abnews24bd.com, Developed by i2soft Technology Ltd.
    Close