সদ্য সংবাদ :
বিশেষ সংবাদ

নেপালের পর এবার ভূটানে জলবিদ্যুৎ উৎপাদনের সমঝোতায় যাচ্ছে সরকার

Published : Saturday, 7 September, 2019 at 10:28 AM
শাহীন চৌধুরী: দেশের বিদ্যুৎ চাহিদা মেটাতে  নেপালের পর এবার ভুটানের সঙ্গে জলবিদ্যুৎ উৎপাদনে সমঝোতা করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ সরকার। বিষয়টি নিয়ে ঢাকায় অনুষ্ঠিত ভারত-বাংলাদেশ যৌথ ওয়ার্কিং গ্রুপের বৈঠকে আলোচনা হয়। এরপর দুদেশের বিদ্যুৎ সচিব পর্যায়ের বৈঠকে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। খবর বিদ্যুৎ বিভাগ সূত্রের।

সূত্র জানায়, কুমিল্লার ওপর দিয়ে আরও ৩৪০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আমদানি নিয়ে দুই দেশের ওয়ার্কিং গ্রুপ আলোচনা করে। তবে বাংলাদেশ এই মূহুর্তে ত্রিপুরার চেয়ে উত্তরাঞ্চল দিয়ে বিদ্যুৎ আমদানিকে প্রাধান্য দেয়। প্রয়োজনে সেখান দিয়ে বাংলাদেশের বিদ্যুৎ রফতানির বিষয় নিয়েও আলোচনা হয়। বর্তমানে ত্রিপুরা থেকে ১৬০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আসছে। এখানে একটি ব্যাক-টু-ব্যাক সাবস্টেশন নির্মাণ করা হচ্ছে।

ভারতের জিএমআর নেপালে বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ করছে। বিদ্যুৎ বিক্রির বিষয়ে উভয় দেশ একমত হলেও বিদ্যুতের দর নিয়ে মতপার্থক্য রয়েছে। ওয়ার্কিং কমিটি এই মতপার্থক্য দূর করার পক্ষে মতামত দিয়েছে। বৈঠকে বাংলাদেশের ওপর দিয়ে গ্রিড লাইন নির্মাণের রুট সার্ভে প্রতিবেদন নিয়ে আলোচনা হয়েছে বলে জানা গেছে।

ভারতের বিদ্যুৎ সচিব সুভাস চন্দ্র গার্গির নেতৃত্বে একটি উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধি দল দুদিনের সফরে বাংলাদেশে এসেছিলেন। এ দলে রয়েছেন ভারতের সব থেকে বড় কোম্পানি ন্যাশনাল থার্মাল পাওয়ার কোম্পানির চেয়ারম্যান অ্যান্ড ম্যানেজিং ডিরেক্টর (সিএমডি) গুরদীপ সিং-ও ছিলেন। ঢাকার হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে ভারত-বাংলাদেশ সচিব পর্যায়ের ওই বৈঠক অনুষ্ঠিত হয় ।

এর আগে প্রতিনিধি দলের সদস্যরা রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্রের অগ্রগতি দেখতে প্রকল্প এলাকা পরিদর্শন করেন। বিদ্যুৎ বিভাগের সিনিয়র সচিব ড. আহমদ কায়কাউস ভারতের প্রতিনিধি দলের সঙ্গে ছিলেন। নির্ধারিত সময়ে পায়রা তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র উৎপাদনে আনার ওপর জোর দিয়েছে প্রতিনিধি দলটি।

এদিন রামপালে কোম্পানির বোর্ড মিটিং অনুষ্ঠিত হয়। ওই বৈঠকে নির্ধারিত সময়ে কেন্দ্রটি উৎপাদনে আনার পক্ষে উভয় দেশ জোর দেয়। বৈঠকের একটি সূত্র জানায়, ভারতের পক্ষ থেকে এখন কেন্দ্রটি উৎপাদনে আনার ওপর সব থেকে বেশি জোর দেওয়া হচ্ছে। এখানে আরও একটি ১০০ মেগাওয়াটের সৌরবিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের বিষয়ে ইতিপূর্বে আলোচনা হয়েছিল। কিন্তু এবারের বৈঠকে এ বিষয়ে কোনও আলোচনা হয়নি।

বৈঠকে অংশগ্রহণকারি একজন কর্মকর্তা জানান, রামপাল কেন্দ্রের ৪০ ভাগের বেশি কাজ শেষ হয়েছে। প্রকল্প নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান বিআইএফপিসিএল প্রকল্প কাজের অগ্রগতি তুলে ধরেন।

এ প্রসঙ্গে পাওয়ার সেলের মহাপরিচালক মোহাম্মদ হোসাইন বলেন, ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠকে অমীমাংসিত বিভিন্ন ইস্যুতে আলোচনা হয়েছে। এর মধ্যে নেপালের জিএমআর-এর কাছ থেকে বিদ্যুৎ আমদানি, ভুটানের সঙ্গে এমওইউ সই এবং ত্রিপুরা থেকে আরও ৩৪০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আমদানি আলোচনায় প্রাধান্য পেয়েছে।





এবিনিউজ টুয়েন্টিফোর বিডিডটকম//এফ//










সম্পাদক: শাহীন চৌধুরী
ঢাকা অফিস: ২/১ হুমায়ুন রোড (কলেজ গেট) মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭ ফোন: ৮৮-০২-৯১১৯১১৬, হটলাইন: ০১৭১১-৫৮৩৬২৩, ০১৭১৭-০৯৮৪২৮, চট্টগ্রাম অফিস- আবাসিক সম্পাদক: জাহিদুল করিম কচি, নাসিমন ভবন (দ্বিতীয় তলা) ১২১, নূর আহমেদ রোড, চট্টগ্রাম ফোন: ০৩১-২৫৫৭৫৪২ হটলাইন: ০১৭১১-৩০৭১৭১, E-mail : [email protected], Web : www.abnews24bd.com, Developed by i2soft Technology Ltd.
Close